বিশাল থেকে বিশাল

Rafflesia নাম শুনেননি এরকম মানুষ খুব কমই খুজে পাওয়া যাবে। আসলে Rafflesia হচ্ছে পৃথিবীর সব থেকে বৃহত্তম ফুল। আর এবার ইন্দোনেশিয়ার সুমাত্রায় একদল আমেরিকান বিজ্ঞানী আবিস্কার করলো Rafflesia এর নতুন একটি প্রজাতি।
Rafflesia হচ্ছে হলোপ্যারাসিটিক উদ্ভিদগুলোর মধ্যে এমন একটি প্রজাতি যাদের সত্যিকার অর্থে কোন পাতা বা মূল থাকে না, সেকারনেই Tetrasigma গোত্রভুক্ত উদ্ভিদগুলো vines প্রজাতির উদ্ভিদগুলোর হোস্ট হিসেবে কাজ করে।
অনেক প্রজাতির Rafflesia রয়েছে যেগুলো দেখতে বিশাল আকারের হয়ে থাকে সেগুলো ব্যাস প্রায় ৩৯ ইঞ্চি এবং ওজনে প্রায় ১০ কেজির মত হয়ে থাকে। যা সত্যিকার অর্থেই ফুলের হিসেবে বিশার আকার এবং ওজনেরও। আর ফুল গুলো vines প্রজাতির হওয়ায় প্রস্ফুটিত হওয়ার সাথে সাথেই একটা বাজে গন্ধ নির্গত করে এবং গন্ধটি মুটামুটি ভাবে পচাঁ মাংসের গন্ধের অনুরুপ।
ধারনা করা হয়ে থাকে প্রজাতিগত দিক থেকে Rafflesia দক্ষিণ পূর্ব এশিয়াতে ওয়ালেসের লাইনের পশ্চিম অঞ্চলে বেশী পরিমানে পাওয়া যায়। আপাতত আবিস্কৃত ৩০ টি প্রজাতির Rafflesia গুলোর সব গুলোর সন্ধান মিলেছে থাইল্যান্ড,ইন্দোনেশিয়া এবং ফিলিপাইন থেকে আর এর মধ্যে ১৪ টির সন্ধান মিলেছে ইন্দোনেশিয়া থেকে। এবং সম্প্রতি আবিস্কৃত Rafflesia টিও পাওয়া গেছে ইন্দোনেশিয়ার ব্যাংকুলো প্রদেশ থেকে এবং এর নাম করন করা হয় Rafflesia kemumu.
Universitas Bengkulu researcher Agus Susatya এবং তার সহকর্মীরা বলেন,” পালাক সিরাইং এলাকা থেকে প্রাপ্ত Rafflesia kemumu প্রতি চারটি ফুলের মধ্যে গবেষণা করে দেখা গেছে পাপড়ি গুলোর ২- ১২টি কুঞ্চন বা ভাঁজ রয়েছে। ” এছাড়াও এই প্রজাতিটি ইন্দোনেশিয়ার Kuro Tidur এলাকাতেও খুজে পাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।
Rafflesia kemumu প্রজাতিটি ডায়ামিটারের হিসেবে ১৫ থেকে ১৭.৩ ইঞ্চি পর্যন্ত হতে পারে যা সেন্টিমিটারে হিসাব করতে গেলে প্রায় ৩৮ থেকে ৪৪ সেন্টিমিটার যেটা সচারচার পাওয়া Rafflesia এর থেকে অনেকাংশেই বিশাল। যেখানে Rafflesia রা প্রজাতি অনুসারে সাধারনত বছরের একটা বিশেষ সময়ে ফুটে থাকে কিন্তু Rafflesia kemumu এর দেখা বছরের প্রতিটি মাসেই আপনি পেতে পারেন যদি ভিনেগার আপনার প্রিয় হয়!! তবে গবেষকরা ধারনা করছেন আগস্ট থেকে নভেম্বরই হচ্ছে উত্তম সময় যখন আপনি পঁচা মাংস সদৃশ গন্ধ যুক্ত Rafflesia kemumu এর দেখা পাবেন। তবে ভাগ্য সুপ্রসন্ন হলে ডিসেম্বরেও আপনার সাথে দেখা হয়ে যেতে পারে Rafflesia kemumu এর।
এরই মধ্যে Rafflesia kemumu কে গবেষণাকারীরা আইইউসিএন (IUCN) এর লাল তালিকাভুক্ত অর্থাৎ বিপদজনক উদ্ভিদের তালিকা ভুক্ত করার সুপারিশ জানিয়েছেন।
কেননা Northern Bengkulu যেটি ভ্রমন পিপাসু মানুষের জন্য স্বর্গ বলা চলে সেখানের Palak Siring ফরেস্টের কাছাকাছি একটি জায়গায় যেখানে খুব সহজে ভ্রমণ করা যায় সেখানে পর্যটকদের মাধ্যমে ব্যাপক প্রভাবিত হচ্ছে এমনকি বনের মাঝে আদি বসবাস কারী জনগোষ্ঠীর দাড়াও চরম ভাবে প্রভাবিত হচ্ছে।এ ব্যাপারে Phytotaxa জার্নালেও ব্যাপক লেখালেখি হচ্ছে।
তবে সব থেকে আনন্দের খবর এটি যে Rafflesia এর একটি নতুন প্রজাতির সন্ধান আমরা পেয়েছি যেটি সত্যি বিশালের থেকেও বিশাল।

Comments are closed.